মোমবাতি ব্যবহার করছে!!!!

হোষ্টেলে হঠাৎ বিদ্যুৎ নষ্ট হয়ে গেলে,

ওয়ার্ডেন বিদ্যুৎ অফিসে ফোন করলো,

”হ্যালো বিদ্যুৎ অফিস?

আপনার লোকজন কে শিগ্গির পাঠিয়ে দিন,

মেয়েরা সবাই মোমবাতি ব্যবহার করছে!!!!

পচা একটা পুরনো বাইক কিনবে বলে খুঁজছিল

পচা একটা পুরনো বাইক কিনবে বলে খুঁজছিল। একদিন সে এক সেকেন্ড-হ্যান্ড বাইক পেলো। কিন্তু গাড়িটা একদম নতুনের মতোই ছিল। পচা খুশি হয়ে গাড়ি কিনে নিল আর গাড়ির মালিক কে জিগেস করলোঃ দাদা গাড়িটা এরকম নতুন কিভাবে আছে? গাড়ি বিক্রেতাঃ পকেটে করে সবসময় একটা ভেসলিনের কৌটো নিয়ে ঘুরবে। যখনই দেখবে বৃষ্টি আসছে, তুমি ভেসলিনটা সারা গাড়িতে লাগিয়ে দেবে। পচা খুশি হয়ে বাইক নিয়ে চলে গেল। তারপর সন্ধ্যেতে গার্লফ্রেন্ডের সাথে বাইক নিয়ে ঘুরতে গেল। পচা তার গার্লফ্রেন্ডকে বাড়িতে ড্রপ করার সময়, পচার গার্লফ্রেন্ড বললঃ আজ রাতে আমাদের বাড়ি খেয়ে যাও। পচাঃ ঠিক আছে। পচার গার্লফ্রেন্ডঃ একটা শর্ত আছে, আমাদের বাড়িতে খাওয়ার টেবিলে বসে খেতে খেতে, যে কথা বলবে তাকে সমস্ত এঁটো বাসন মাজতে হবে। পচা সেই শুনে বাইকটা বাইরে রেখে, ঘরে ঢুকল। ঘরে ঢুকে দেখলঃ ঘরের চারিদিকে এঁটো বাসন ছড়ানো রয়েছে। পচা কোনো কথা না বলে, চুপচাপ খাওয়ার টেবিলে বসে খাওয়া শুরু করল। হঠাৎ পচার মাথায় দুষ্টু বুদ্ধি এল। সে তার গার্লফ্রেন্ডকে কিস করা শুরু করল। কিন্তু বাসন মাজার ভয়ে কেউ কিছু বলল না। এরপর পচা তার গার্লফ্রেন্ডের জামাকাপড় খুলে মেঝেতে জোতদার সেক্স করল। তবুও কেউ কিছু বলল না। এরপর সুযোগ পেয়ে পচা তার গার্লফ্রেন্ডের বোনের সাথেও সেক্স করল। তারপর পচা তার গার্লফ্রেন্ডের মায়ের সাথেও সেক্স করল। এরপরই হঠাৎ বৃষ্টি শুরু হল। পচা তাড়াতাড়ি তার প্যান্টের পকেট থেকে, ভেসলিনের কৌটাটা বের করল। সেই দেখে পচার গার্লফ্রেন্ডের বাবা চিৎকার করে উঠলঃ বাবা, আমাকে ছেড়ে দে। আমি সব বাসন মাজবো রে!!

বিবাহিত ভদ্রমহিলা

বিবাহিত এক ভদ্রমহিলা গেছেন ডাক্তারের কাছে – ডাক্তার সাহেব, আমার স্তন দুটি অনেক ছোট, কী করলে বড় হবে জানাবেন?

ডাক্তারটি আবার বেজায় লম্পট, ভাবল এই তো সুযোগ। খুশি হয়ে মহিলাকে বলল, এখন থেকে প্রতিদিন একবার করে আসবেন। আমি চুষে বড় করে দিব।

মহিলা খুশি হয়ে বলল, তাই?? তাহলে আমার স্বামীকেও নিয়ে আসব আপনার কাছে। তার penis টাও অনেক ছোট, আপনি চুষে বড় করে দিয়েন…

সেক্রেটারী বার্থডেতে

এক সেক্রেটারী বার্থডেতে তার বসের কাছ থেকে একটা এক্সপেন্সিভ PEN গিফট পেল।সে বাসায় এসে রাতের বেলা PEN দিয়ে লিখে খুব মজা পেল।পরদিন সকালে সে চিন্তা করল,বস কে ধন্যবাদ জানিয়ে একটা SMS করি।SMS টি যখন আসলো তখন বস ঘুমিয়ে ছিল।SMS টি পড়লো তার বউ।পড়েই
সে বাপের বাড়ী চলে গেল।

…SMS টি ছিল এইরকম… ↓↓↓









→ → → “Your penis wonderful, I enjoyed using it last night. Thanks.”

তিন জন মেয়ে

তিন জন মেয়ে রাস্তায় একটা প্রাইভেট কারে ( private car ) লিফট নিল ! তো প্রাইভেট কারে তিন জন তরুন ইঞ্জিনিয়ার যাচ্ছিলো, কাজেই মেয়ে তিনজনের বসার জায়গা ছিল না ! তাই মেয়ে তিন জন ছেলে তিনজনের কোলে বসে পড়লো ! গাড়ী চলছে… ১০ মিনিট পর—–
১ম মেয়েঃ আপনি কি ইলেকট্রিক ইঞ্জিনিয়ার?
১ম ছেলেঃ ( অবাক হয়ে ) আপনি কি করে বুঝলেন?
১ম মেয়েঃ নাহ, মানে আপনার টাওয়ার চেষ্টা করছে আমার নেটওয়ার্কহীন জাগায় নেটওয়ার্ক স্থাপন করতে !!!!!!
২য় মেয়েঃ আপনি কি কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার?
২য় ছেলেঃ ( অবাক হয়ে ) আপনি কি করে বুঝলেন?
২য় মেয়েঃ নাহ, মানে আপনার পেনড্রাইভ মনে হচ্ছে আমার ইউএসবি’তে কানেক্ট হতে চাচ্ছে !!!!
৩য় মেয়েঃ আপনি কি মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার?
৩য় ছেলেঃ ( অবাক হয়ে ) আপনি কি করে বুঝলেন?
৩য় মেয়েঃ নাহ, মানে হচ্ছে আপনার পিস্টন মনে হয় আমার সিলিন্ডারে ঢুকতে চাচ্ছে।

মাষ্টার আর এক ছাত্র

একদিন এক মাষ্টার আর এক ছাত্র রাস্তা দিয়ে হাটতেছে এই সময় ছাত্র দেখতে পেল একটি পুকুরের মধ্যে একটি হাঁসের উপর অন্য এটি হাঁস উঠে আছে। ছাত্র তখন স্যারকে বলল—
ছাত্রঃ স্যার হাঁস গুলো কি করছে।
স্যারঃ লজ্জায় কি বলবে বোঝতে না পেরে বলল একটা হাঁস অন্য হাঁসকে সাহস দিচ্ছে।
একদিন প্রচন্ড বৃষ্টি হচ্ছে স্যারের মেয়ে স্কুলে রয়েগেছে স্যার তার ছাত্রকে পাঠাল মেয়ে কে নিয়ে আসার জন্য।
ছাত্রঃ চল তোমার বাবা আমাকে পাঠিয়েছে তোমাকে নেয়ার জন্য।
মেয়েঃ আমার ভয় করে।
ছাত্রঃ আমি সাহস দিতে পারি দেব?
মেয়েঃ দাও!!
ছাত্র হাঁসের মত করে তাকে সাহস দিয়ে বাড়িতে নিয়ে গেল। স্যার তার মেয়েকে বাড়ি যাওয়ার পর জিঙ্গাস করল আসার পথে ভয় করেছেকিনা?? মেয়ে বলল না বাবা তোমার ছাত্র আমাকে সাহস দিয়ে এনেছে।

ভাবি এবং দেবর..!!

ভাবি এবং দেবর..!!
ভাবিঃ কিরে তোর মাইয়া পছন্দ হইছে??
দেবরঃ না ভাবি…
ভাবিঃ কেন কি হইছে??
দেবরঃ সবই ঠিক আছে,, কিন্তু একটু খাটো।।
ভাবিঃ আরে বোকা মোবাইল ছোট হোক আর বড় হোক মেমোরি ঢুকানোর যায়গা কিন্তু সমান।